1. ayanabirbd@gmail.com : সামিয়া মাহজাবিন :
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ১২:২২ অপরাহ্ন

বাজেটে কালো টাকা সাদা, বৈষম্যের শিকার সৎ করদাতারা

ফাহমিদা সুলতানা
  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ২ জুন, ২০২১

আগামী অর্থবছরের বাজেটেও কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকছে। ঢালাওভাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়ায় সৎ করদাতারা বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বলে ক্ষোভ জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

 

 

আর অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এই কালো প্রথা প্রকারান্তরে দুর্নীতিকেই উৎসাহ দিচ্ছে।

স্বাধীনতা পর ১৯৭৭-৭৮ অর্থবছরে প্রথম কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয় তৎকালীন সরকার। এরপর এই দূষিত প্রথার বিরুদ্ধে নানা মহল থেকে সমালোচনার ঝড় উঠলেও তা নিষিদ্ধের উদ্যোগ নেয়নি পরবর্তী কোনো সরকার।

যেখানে সৎ ব্যবসায়ী ও করদাতারা বছরে ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ হারে কর প্রদান করেন সেখানে মাত্র ১০ শতাংশ কর দিয়ে ঘুষ, চাঁদাবাজি, দুর্নীতির মাধ্যমে আয় করা অবৈধ অর্থ সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে। এমন ব্যবস্থাকে অনৈতিক ও বৈষম্যমূলক বলে মনে করছেন করদাতারা।

 

 

অর্থ-মন্ত্রণালয়ের হিসাব বলছে, এমন সুযোগ কাজে লাগিয়ে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে টাকা সাদা করেছেন ১০ হাজার ৩৪ জন। আর বৈধ করেছেন ১৪ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা। অথচ এর থেকে সরকারের রাজস্ব আয় মাত্র ১৪ কোটি টাকা।

এদিকে ঢালাওভাবে কালো টাকা সাদা করার বিধান থাকছে আগামী বাজেটেও। কেবল তাই নয় যতদিন দেশে কালো টাকা থাকবে ততদিন এই সুযোগ বহাল রাখার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। অন্যদিকে সরকারি হিসাবে স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত কালো টাকা থেকে পাওয়া রাজস্ব অর্থনীতিতে যোগ হয়েছে মাত্র ২৮ হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি।

এ বিষয়ে পারটেক্স স্টার গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আজিজ আল মাহমুদ মিঠু ইউটিভিকে বলেন, আমরা সৎ ভাবেই ট্যাক্স দেই। আর যারা অসৎ উপায়ে টাকা আয় করছে তারা কিন্তু এই সুযোগ পাচ্ছে। যা একেবারেই কাম্য নয়।

 

 

একই বিষয়ে এনবিআর এর সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ ইউটিভিকে বলেন, সংবিধানের সাথে এটি সাংঘর্ষিক।

রাষ্ট্রের নিশ্চিত করতে হবে দুর্নীতি করে আয় করা টাকা যাতে কেউ ব্যবহার করতে না পারে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর