ঢাকাবুধবার , ৬ অক্টোবর ২০২১
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ইউ কৃষি
  5. ইউ মিউজিক
  6. ইউ স্পোর্টস
  7. ইউটিভি পরিবার
  8. ইয়ুথ ব্লেন্ড
  9. উদোক্তা
  10. উৎসব
  11. এককাপ চা
  12. এক্সক্লুসিভ
  13. খেলা
  14. গণমাধ্যম
  15. গসিপ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দর্শকরা দেখছেন বিজ্ঞাপনমুক্ত ২৪ বিদেশি চ্যানেল

প্রতিবেদক
মুনিরা হাসান মৌ
অক্টোবর ৬, ২০২১ ৮:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দেশের দর্শকরা আবারো দেখতে পারছেন ‘ক্লিন ফিড’ বা বিজ্ঞাপনমুক্ত অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা ২৪টি বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেল। সরকারের পক্ষ থেকে তাদের পুনরায় সম্প্রচার চালুর নির্দেশের পর দর্শকরা চ্যানেলগুলো দেখতে পাচ্ছেন।

 

 

এই ২৪ বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো হলো- বিবিসি, সিএনএন, আল জাজিরা এইচডি, ডিডাব্লিউ, কেবিএস ওয়ার্ল্ড, এনএইচকে ওয়ার্ল্ড, সিজিটিএন, রাশিয়া টুডে, ফ্রান্স ২৪, লোটাস, ট্রাভেল এক্সপি এইচডি, আল কুরান, টেন স্পোর্টস, ডিসকভারি, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক, দুবাই স্পোর্টস, মাস্তি টিভি, বিফরইউ মিউজিক, এমটিভি, স্টার স্পোর্টস-১, স্টার স্পোর্টস-২, স্টার স্পোর্টস-৩, স্টার স্পোর্টস-৪ ও এআরআই টিভি।

এদিকে দেশে বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচারে ক্লিন ফিড (বিজ্ঞাপনমুক্ত) বাস্তবায়নে আজ বুধবার থেকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি জানান, ক্লিন ফিড আসার পরও যারা তা সম্প্রচার করছে না, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে মোবাইল কোর্ট। আমরা দেশের আইন কার্যকর করেছি দেশের স্বার্থে, সবার স্বার্থে। একটি মহল নানা অজুহাতে আইন কার্যকর করতে দেয়নি। তাই ক্যাবল অপারেটররা নিয়মনীতি মানছে কি না- তাও খতিয়ে দেখবে মোবাইল কোর্ট।

বিজ্ঞাপনসহ বিদেশি চ্যানেল বাংলাদেশে সম্প্রচার করা যাবে না – বাংলাদেশের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় থেকে এই নির্দেশ দেয়া হয়েছিল এসব চ্যানেলের দেশীয় পরিবেশকদের। বাংলাদেশে বিদেশি টিভি চ্যানেল সম্প্রচার সংক্রান্ত একটি পুরনো আইন বাস্তবায়ন করতে গিয়ে গত শুক্রবার (১ অক্টোবর) থেকে দেশটিতে সব রকম বিদেশি টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়ার পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন দেশটির অনেক টিভি দর্শক।

আইনটিতে বলা আছে, যেসব বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো হয়, সেসব চ্যানেল বাংলাদেশে প্রদর্শন করা যাবে না, এই নিয়ম কার্যকর করতে গিয়ে শুক্রবার বিবিসি-সিএনএনসহ সব আন্তর্জাতিক খবরের চ্যানেল, খেলার চ্যানেল এবং ভারতীয় বিনোদন চ্যানেলগুলোসহ সব বিদেশি চ্যানেলগুলো বন্ধ করে দেয় কেবল অপারেটররা, যা এখন পর্যন্ত বন্ধই রয়েছে।