ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ইউ কৃষি
  5. ইউ মিউজিক
  6. ইউ স্পোর্টস
  7. ইউটিভি পরিবার
  8. ইয়ুথ ব্লেন্ড
  9. উদোক্তা
  10. উৎসব
  11. এককাপ চা
  12. এক্সক্লুসিভ
  13. খেলা
  14. গণমাধ্যম
  15. গসিপ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

উত্তপ্ত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শাস্তির দাবীতে আন্দোলন:
খুলনায় জুতা পায়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে নার্সিং সুপারভাইজার রোকেয়া খাতুন

প্রতিবেদক
সুনীল কুমার দাস, ব্যুরো প্রধান (খুলনা)
সেপ্টেম্বর ৯, ২০২১ ৬:৫১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলী প্রদান নিয়ে নার্সিং সুপারভাইজার রোকেয়া খাতুনের অসম্মানজনক আচরন ও আপত্তিকর মন্তব্যকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত খুলনা মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন হাসপাতাল।

জুতা পায়ে ম্যুরালে উঠে বঙ্গবন্ধুকে অসম্মানসহ ধৃষ্টতাপূর্ন আচরনকারী ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে নার্সিং সমাজ। ইতিমধ্যেই জড়িতদের বিচার ও শাস্তির দাবীতে স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদের পক্ষ থেকে স্মারকলিপি, সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। দ্রুত জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারীও দিয়েছেন নার্স নেতৃবৃন্দ।

এদিকে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি অসম্মান ও  আপত্তিকর মন্তব্যকে রাষ্ট্রদ্রোহীতা ও শাস্তিযোগ অপরাধ উল্লেখ করে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবী চিকিৎসক নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের। এ নিন্দনীয় ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

গত ১৫আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাত বার্ষিকীতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সকল চিকিৎসক, নার্স, শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ সকল স্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানান। এ সময় রীতি অনুযায়ী সকলেই বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল বেদীতে জুতা খুলে সম্মান জানিয়ে পুস্পস্তবক অর্পন করেন।

কিন্তু খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্সিং সুপারভাইজার রোকেয়া খাতুন ইচ্ছাকৃতভাবে জুতা পরে বেদীতে উঠেন। তাকে হাসপাতালের কর্মকর্তাসহ অন্যরা নিষেধ করলেও তিনি সেটা উপেক্ষা করে জুতা পায়ে ম্যুরাল বেদীতে যান। পরে বিষয়টি নিয়ে তার সহকর্মীরা প্রতিবাদ করলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে জুতা পায়ে উঠার বিষয়ে অসম্মানজনক ও ধৃষ্টতাপূর্ন কথা বলেন। এ নিয়ে চরম ক্ষুব্ধ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের নার্স ও চিকিৎসকসহ সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী।

বঙ্গবন্ধুকে এভাবে অবমাননা ও অসম্মানকারীদের শাস্তির দাবীতে ইতিমধ্যেই স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদ স্মারকলিপি, সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচীও পালন করেছে। বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার ও অবমাননা করা পুরো বাংলাদেশ তথা বলে তিনি মনে করেন এবং দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী তার শাস্তির দাবী জানান স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

তবে নার্সিং সুপারভাইজার রোকেয়া খাতুন বিষয়টি তাড়াহুড়া ও ভুলবুঝে হয়েছে বলে দাবী করেছেন। এজন্য হাসপাতালের পরিচালক মহোদয়ের নিকট তিনি ক্ষমা চেয়েছেন পাশাপাশি তাকে এই অভিযোগের ভিত্তিতে শোকজের জবাবও দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

চিকিৎসক নেতা ও জনপ্রতিনিধিরা জাতীয় শোক দিবসে একজন সরকারী কর্মচারী-কর্মকর্তা জাতির পিতাকে সম্মান করা তার দায়িত্ব ও কর্তব্য জেনেও জুতা পায়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল বেদীতে উঠার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন। একজন সিনিয়র নার্স এহেন গর্হিত কাজ কিভাবে করেন। তিনি যা করেছেন এটা জাতীয় অপরাধ করেছেন। তিনি দেশের আইনে যে শাস্তির বিধান আছে তা পাবেন এবং এরুপ অপরাধের নিন্দা জানিয়েছেন চিকিৎসক নেতা ডা. মেহেদী নেওয়াজ।

খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সবাপতি শেখ হারুনুর রশিদ বলেন, যার জম্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না এবং মেডিকেল কলেজ হতো না ও নার্সিং চাকুরীর সুযোগও হতো না। সেই নার্স কিভাবে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে জুতা পায়ে ওঠে তা আমার বোধগম্য নয়। তিনি দেশের প্রচলিত আইনে প্রশাসনের নিকট তার শাস্তির দাবী জানান। তাহলে এ ধরনের জঘন্য অপরাধ কেউ কখনও করার দুঃসাহস পাবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোঃ রবিউল হাসান জানান, লিখিত অভিযোগ ও পত্র পত্রিকার মাধ্যমে অবগত হয়ে ঘটনার সাথে জড়িত নার্স রোকেয়া খাতুনকে শোকজ করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।